মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬

গুম প্রসঙ্গে

দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে আবারও গুমের প্রসঙ্গ ব্যাপকভাবে আলোচিত হচ্ছে। এর কারণ তৈরি করেছেন নিকট অতীতের বিভিন্ন সময়ে গুম হয়ে যাওয়া ২০ জনের পরিবার সদস্যরা। গত রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে গুম হওয়াদের স্ত্রী-সন্তানদের সঙ্গে কারো কারো মায়েরাও উপস্থিত হয়েছিলেন। তারা অভিযোগ করেছেন, সরকারের আইন-শৃংখলা বাহিনীর পরিচয়ে সাদা পোশাকের লোকজন তাদের স্বজনদের উঠিয়ে নিয়ে গেছে এবং তারপর থেকে গুম হয়ে যাওয়াদের কোনো খোঁজ-খবর পাচ্ছেন না স্বজনরা। তারা প্রত্যেককে ফিরিয়ে দেয়ার দাবি জানিয়েছেন। বলেছেন, ফিরিয়ে না দেয়া হলেও গুম হওয়াদের বিষয়ে সরকার যেন অন্তত সঠিক তথ্য জানানোর ব্যবস্থা করে। গুম হওয়ারা বেঁচে আছেন কি না সে ব্যাপারেও জানানোর দাবি তুলেছেন স্বজনরা। 
অন্যদিকে সরকারের পক্ষ থেকে গুমের বিষয়টিকে যথারীতি পাশ কাটিয়ে যাওয়ার চেষ্টাই লক্ষ্য করা গেছে। রোববার গুম ব্যক্তিদের স্বজনরা যখন জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করছিলেন ঠিক তখনই রাজধানীতে অন্য এক অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল রাজধানীতেই এক অনুষ্ঠানে বলেছেন, দেশে গুম বলে কোনো শব্দ নেই। কেউ গুম হয়েছে এটা নাকি তার জানা নেই। মন্ত্রী আরো বলেছেন, যারা গুম হয়েছেন বলে দাবি করা হচ্ছে, তারা বিভিন্ন কারণে আত্মগোপনে রয়েছেন। অতীতে যারা গুম হয়েছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছিল তাদের অনেকেই আবার ফিরেও এসেছেন। 
বলার অপেক্ষা রাখে না, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তার সর্বশেষ এই বক্তব্যের মাধ্যমেও জাতিকে নিরাশই করেছেন। কারণ, মাননীয় মন্ত্রীর গুম শব্দটি জানা না থাকলেও বর্তমান সরকারের আমলে গুম শুধু হচ্ছেই না, গুম হয়ে যাওয়াদের প্রায় কারো খবর পর্যন্ত পাওয়া যাচ্ছে না। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যেখানে আবারও ফিরে আসার কথা বলেছেন, বাস্তবে সেখানে সত্য কিন্তু সম্পূর্ণ অন্য রকম। গুম হওয়াদের অনেকের লাশই পরবর্তীকালে নদী-খাল ও নালা- ডোবার কিংবা সড়ক-মহাসড়কের পাশে পড়ে থাকতে দেখা গেছে। এখনো, এমনকি গত কয়েকদিনেও এ ধরনের খবর প্রকাশিত হয়েছে। এরকম এক খবরে বলা হয়েছে, নাটোরের তিন যুবকের লাশ পাওয়া গেছে দিনাজপুরে। এই তিনজন অবশ্য আওয়ামী যুবলীগের কর্মী ছিল। কিন্তু তা সত্ত্বেও সত্য হলো, তিনজনকে গুমই করা হয়েছিল এবং করেছিল সরকারের আইন-শৃংখলা বাহিনীর পরিচয়দানকারী লোকজন। 
এ ধরনের আরো অনেক ঘটনারও উল্লেখ করা যায়। অন্যদিকে সব জেনে-বুঝেও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কিন্তু তার কথা পাল্টাননি। একটি জাতীয় দৈনিকের জিজ্ঞাসার জবাবে সোমবার তিনি বরং বলেছেন, এটা তো প্রমাণিত, এর আগে অনেকেই গুম হয়েছেন বলে তাদের স্বজনরা দাবি করেছিলেন। কিন্তু পরে দেখা গেছে, তাদের অনেকে ফিরেও এসেছেন। অনেকে বিভিন্ন মামলায় গ্রেফতারের ভয়ে কিংবা পুলিশের সঙ্গে মারামারি করে আত্মগোপনে চলে যান। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আবার ফিরেও আসেন। এর আগে এরকম কয়েকটি ঘটনা দেখা গেছে। আমি তো সে কথাই বলেছি। 
মাননীয় মন্ত্রীর কথার পিঠেও কিন্তু কথা উঠেছে। বলা হচ্ছে, তিনি ঠিক কাদের ফিরে আসা বা আত্মগোপনে চলে যাওয়া সম্পর্কে বলেছেন তাদের নাম-পরিচয় জানানো হলে জনগণ সঠিক তথ্য জানার সুযোগ পেতো। অন্যদিকে মন্ত্রী কেবল ঢালাও মন্তব্য করেই থেমে পড়েছেন। এ প্রসঙ্গে বড় কথা হলো, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানেন না বললেও বাস্তবে গুম হয়ে যাওয়াদের সংখ্যা আশংকাজনকভাবে বেড়ে চলেছে। মঙ্গলবারও প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, আইন ও সালিশ কেন্দ্রের হিসাবে বিগত তিন বছরে গুম হয়েছেন ১৯৬ জন। মানবাধিকার সংগঠন অধিকার জানিয়েছে, চলতি বছরের ৩০ নবেম্বর পর্যন্ত ১১ মাসে গুম হয়েছেন ৩৪ জন। এই হিসাবে চার বছরে গুম হয়ে যাওয়াদের সংখ্যা অন্তত ২৩০ জন। এর অর্থ, মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সত্য এড়িয়ে গেছেন। ওদিকে মন্ত্রীর দাবি অনুযায়ী গুম হওয়াদের অনেকে যে ফিরে আসেননি তার সর্বশেষ প্রমাণ তো ২০ পরিবার সদস্যদের সংবাদ সম্মেলনই।
আমরা মনে করি, সরকারের উচিত সত্য এবং দায়দায়িত্ব স্বীকার করে নেয়া। কারণ, কয়েক বছর পেরিয়ে গেলেও বিএনপি নেতা ও সিলেটের সাবেক সংসদ সদস্য ইলিয়াস আলী এবং ঢাকার সাবেক ওয়ার্ড কমিশনার চৌধুরী আলমসহ অনেকেরই আজ পর্যন্ত কোনো হদিস পাওয়া যায়নি। এমনকি স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী আশ্বাস দেয়ার পরও কেউ ‘ফিরে’ আসেননি। দেশে উল্টো বরং গুমের সংখ্যা বেড়ে চলেছে। প্রতিবাদ জানানোর পাশাপাশি আমরা গভীর উদ্বেগও প্রকাশ করছি এজন্য যে, বিশ্বের সব দেশেই গুম ও গুপ্তহত্যার মতো বিচারবহির্ভূত কর্মকা-কে মারাত্মক অপরাধ হিসেবে শুধু নয়, অত্যন্ত ঘৃণার সঙ্গেও দেখা হয়। গণতান্ত্রিক কোনো দেশে রাজনৈতিক দলের কোনো নেতা বা কর্মীকে গুম করা হবে এবং পরে এখানে-সেখানে তার লাশ পাওয়া যাবে এমনটা কল্পনা করা যায় না। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ সরকারের অধীন বাংলাদেশে গুম ও খুনের কোনো হিসাবই রাখা সম্ভব হচ্ছে না। এ অবস্থা চলছে ২০০৯ সালের জানুয়ারিতে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর থেকেই। বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের ওপর দমন-নির্যাতন তো বটেই, হত্যার নিষ্ঠুর অভিযানও ক্রমাগত শুধু বেড়েই চলেছে। বিদেশের গণমাধ্যমেও এসব বিষয়ে রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলোও সোচ্চার হয়ে উঠেছে। কিন্তু এ ব্যাপারে নিরাপত্তা বাহিনী সদস্যদের কাছ থেকে জবাবদিহিতা আদায়ের কোনো অর্থপূর্ণ উদ্যোগ নেয়নি সরকার। সরকারের সর্বশেষ তথা বর্তমান মনোভাব সম্পর্কে স্বয়ং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যে ভাষায় জানান দিয়েছেন তা শুনেও নিশ্চয়ই আশাবাদী হওয়ার উপায় থাকে না।
আমরা মনে করি, কোনো গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রেই এমন অবস্থা চলতে দেয়া যায় না। সরকারের উচিত কালবিলম্ব না করে গুম ও খুনের চলমান অভিযান বন্ধ করা। সেই সাথে গুম হওয়াদের স্বজনদের কাছে ফিরিয়ে দেয়াও উচিত, যদি অবশ্য তাদের এখনো বাঁচিয়ে রাখা হয়ে থাকে!
Reactions:

0 comments:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Ads