মঙ্গলবার, ৫ এপ্রিল, ২০১৬

মার্চ মাসে রাজনৈতিক সন্ত্রাস


ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তাদের ক্ষমতা এককভাবে হাতিয়ে নেয়ার লক্ষ্যে প্রতিপক্ষের প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের নানা প্রকার ভয়-ভীতি প্রদর্শনসহ পেশীশক্তির ব্যবহার অব্যাহত রেখেছে। আওয়ামী লীগের স্বৈরচারী নীতির সন্ত্রাসের ফলে তাদের দল এবং জোটের প্রার্থীরাও রেহাই পায়নি। সদ্য বিদায়ী মার্চ মাসে গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্য থেকে রাজনৈতিক সন্ত্রাসের যে চিত্র পাওয়া যায় তাতে ক্ষমতাসীন দল, তাদের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন সন্ত্রাসে নিজেদের অপ্রতিরোধ্য প্রাধান্য অক্ষুণ্ন রেখেছে। এ মাসে ইউপি নির্বাচনের সাথে সংঘটিত সন্ত্রাসে নিহত বিয়াল্লিশ জন, তবে কেবল সাধারণ রাজনৈতিক সন্ত্রাস সংশ্লিষ্ট তথ্যে নিহতের সংখ্যা তের। এই তের জনের ছাত্রলীগের হাতে পাঁচ, যুবলীগের হাতে তিন, শ্রমিক লীগের হাতে এক, হিজবুত তাওহীদের হাতে এক ও গ্রামবাসীদের হাতে হিজবুত তাওহীদের তিনজন খুন হয়। এ মাসে রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টায় আহত হয় একশ’ তিরানব্বই জন, সন্ত্রাসের অভিযোগে গ্রেফতার দু’শ’ নয় এবং দণ্ডপ্রাপ্ত আটজন। দণ্ডপ্রাপ্ত এই আটজনের পাঁচজনই আওয়ামী লীগের এবং বাকি তিনজন জাপার। প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে মার্চ মাসে যারা নিহত হয়- (১) নাটোরে দলীয় কোন্দলে শ্রমিক লীগের হাতে খুন মাসুদ রানা (শ্রমিক লীগ), (২) নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে হিজবুত তাওহীদের সাথে গ্রামবাসীর সংঘর্ষে নিহত সোলায়মান খোকন (হিজবুত তাওহীদ), (৩) ইব্রাহিম রুবেল (হিজবুত তাওহীদ) ও (৪) আব্দুস সুবহান (হিজবুত তাওহীদ), (৫) হিজবুত তাওহীদের হাতে নিহত মজিবুল হক (গ্রামবাসী), (৬) চট্টগ্রামে ছাত্রলীগের হাতে নিহত আব্দুল জাহেদ (ব্যবসায়ী), (৭) নোয়াখালীর মাইজদীতে ছাত্রলীগের হাতে নিহত ফজলে রাব্বি রাজু (ছাত্রদল), (৮) ওয়াসিম (ছাত্রলীগ), (৯) রাজু (ছাত্রলীগ) ও (১০) চট্টগ্রামে ছাত্রলীগের দলীয় কোন্দলে নিহত সোহেল আহমেদ (ছাত্রলীগ) এবং (১১) নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় যুবলীগ কর্মীর হাতে নিহত শাহজাহান (দোকান কর্মচারী) (১২) সিলেট সদরে যুবলীগ নেতার হাতে নিহত বিপ্লব রায় বিপুল (ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী) ও (১৩) চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে যুবলীগের দলীয় কোন্দলে নিহত রিয়াজ উদ্দিন নয়ন (যুবলীগ)।
আওয়ামী লীগ : ১ মার্চ ঢাকার সাভারে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদল কর্মী গোলাম সরোয়ার তুহিনকে পিটিয়ে পা ভেঙ্গে দিয়েছে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। ক্লাস শেষ করে বটতলায় দাঁড়িয়ে ছিলেন তুহীন, এমন সময় শহীদ সালাম বরতক হলের ছাত্রলীগ সভাপতি নওশাদ আলম অনিক, ছাত্রলীগ কর্মী কামরুল হাসান, নাজমুল হাসান রিয়াল, রাশেদ খান মেনন, শামীম আহমেদ, সাব্বির আহমেদ, সাইফুল ইসলাম ও শরীফ হোসেন লস্কর আশিক তার ওপর অতর্কিতে হামলা চালায়। এরা সকলে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সহ-সভাপতি ও জাবি সাধারণ সম্পাদক রাজিব আহমেদ রাসেলের অনুসারী। বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগ দলীয় কোন্দলে জর্জরিত। সাবেক মহানগর সভাপতি শওকত হোসেন হিরণের মৃত্যুর পর এই কোন্দল চরমে উঠেছে। বিশেষ করে সাধারণ সম্পাদকের পদ দিয়ে এই সমস্যা দেখা যাচ্ছে। ৩ মার্চ খুলনা তেরখাদায় উপজেলা হেলথ কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. আব্দুল্লাহ্ আল-মামুনকে মারধর করায় আওয়ামী লীগ উপজেলা সভাপতি ও সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এস.এম ওহিদুজ্জামানকে গ্রেফতারের দাবিতে খুলনা মহানগরী ও জেলায় কর্মরত সরকারি-বেসরকারি সকল পর্যায়ের ডাক্তারদের কর্মবিরতি পালিত হয়। উল্লেখ্য, চেয়ারম্যান তার স্ত্রীকে বাসায় গিয়ে চিকিৎসা করাতে মেডিকেল অফিসারকে অনুরোধ করে কিন্তু সরকারি বিধিতে বাসায় গিয়ে চিকিৎসা দিতে অপত্তি থাকায় ডা. মামুন যেতে রাজি হয়নি। ফলে চেয়ারম্যান ও তার লোকজন ডাক্তারের ওপর হামলা করে। রাজশাহীর বাঘায় আড়নী পৌরসভায় ভটভটি চালক আব্দুল আওয়াল ও সবজি বিক্রেতা লেলিনকে পিটিয়ে আহত করেছে আড়নী মেয়র ও আওয়ামী লীগ পৌর সাংগঠনিক সম্পাদক মুক্তার আলী। মেয়র রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় এবং সে রাস্তায় একটি কুকুর শুয়ে থাকায় এই দু’জনের সাইড দিতে দেরি হওয়ায় মেয়র ক্ষুব্ধ হয়ে তাদের মারপিট করে। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
৪ মার্চ ফেনীর দাগনভূঞার রাজাপুর ইউনিয়নে ফেনী পৌর জামায়াতের আমীর ও ওয়াজিন মুফতি মাওলানা আব্দুল হান্নানের ওপর হামলা করে আওয়ামী লীগের লোকজন। পরে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে এবং ৫ মার্চ অমানবিকভাবে তাকে জেল হাজতে পাঠায়। ৮ মার্চ ঝালকাঠি পৌর নির্বাচনে অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দেয়ার জন্য আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী মেয়র প্রার্থী আফজাল হোসেন রানাকে লিগ্যাল নোটিশ দেয় আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী লিয়াকত আলী তালুকদার। এতে তার এক কোটি টাকার মানহানি হয়েছে বলে দাবি করে। উল্লেখ্য, গত ২৩ ফেব্রুয়ারি বর্তমান মেয়র আফজাল হোসেন নিজ বাসভবনে এক সাংবাদিক সম্মেলনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দেয় বলে এডভোকেট এস.এম বজলুল হকের মাধ্যমে এই লিগ্যাল নোটিশ দেয় এবং তাদের তিন দিনের মধ্যে জবাব দেয়ার জন্য বলা হয়। পরে দলীয় সিদ্ধান্ত অনুসারে রানাকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করেছে আওয়ামী লীগ। ৯ মার্চ নাটোরে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত আওয়ামী লীগ বাগাতিপাড়া পৌরসভার সাবেক আহ্বায়ক, উপজেলা পরিষদ সাবেক চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও আগামী পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী রুহুল আমীন আদালতের মধ্যে নিজেকে আওয়াী লীগ নেতা পরিচয় দিয়ে চিৎকার চেঁচামেচি করলে আদালত তাকে পাঁচ ঘণ্টা কোর্ট কাস্টডিওতে আটক রাখার নির্দেশ দেয়। এ সময় রুহুল আমীন বার বার আদালতের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করলে আদালতের আদেশে কান ধরে উঠবস করে মুক্তি পায়। কুড়িগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শ্যামল ভৌমিকের ওপর হামলা করে আওয়ামী লীগ নেতা ও শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান বাবু এবং তার লোকজন।
১০ মার্চ মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে সাংবাদিক পেটানো মামলার ৪নং আসামী ও শ্রীনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক পারভেজকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ১১ মার্চ ঢাকার মিরপুর-১ লেগুনা শ্রমিকদের নিকট থেকে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে মিরপুর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস.এম আবু হানিফ গণপিটুনীর স্বীকার হয়। হানিফ মিরপুর-১ শ্রমিকদের নিকট থেকে নিয়মিত চাঁদা তুলে কিন্তু সম্প্রতি চাঁদার পরিমাণ দ্বিগুণ হওয়ায় এ ঘটনা ঘটে। ১১ মার্চ খুলনার দৌলতপুরে নতুন রাস্তা মোড়ে বেবি টেক্সি শ্রমিক লীগ অফিসে জুয়ার টাকা ভাগাভাগি নিয়ে দ্বন্দ্বে বোমা বিস্ফোরণে কাওসার হোসেন ও মোন্তাজ হোসেন বাচ্চু নামে দু’জন আহত হয়। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার দায়ে কামরান ও আসাদুজ্জামান রিপনকে গ্রেফতার করে। সাতক্ষীরার শ্যামনগরে রমজাননগর, কৈখালী ও গাবুরা ইউনিয়নে বিএনপির লোকদের ওপর হামলা করে আওয়ামী লীগের লোকজন। ১২ মার্চ ঢাকার সাভারে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক রাজিব আহমেদ রাসেল সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হওয়ায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে তাণ্ডব চালায় ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগ জাবি শাখার আইন বিষয়ক সম্পাদক আবু সুফিয়ানের নেতৃত্বে ১০-১৫ জন বেআইনী কার্যক্রম চালিয়ে ভিলেজ লাইন পরিবহনের চারটি গাড়ি ভাংচুর করে।
১৪ মার্চ কক্সবাজারের চকরিয়ায় পৌর নির্বাচনে বিএনপির পথসভায় আওয়ামী লীগের হামলায় মেয়র প্রার্থীসহ দশজন আহত হয় বলে বিএনপি অভিযোগ করে। আহতরা হলো- মেয়র প্রার্থী নূরুল ইসলাম হায়দার, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এনামুল হক ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি মিজানুর রহমান চৌধুরী খোকন মিয়াসহ দশজন। ফরিদপুরের ভাঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী জাফর মুন্সির নির্বাচনী ক্যাম্প ভাংচুরের ঘটনায় মাওয়া-খুলনা ও ফরিদপুর-বরিশাল মহাসড়ক অবরোধ করে তার সমর্থকরা। জাফর মুন্সি অভিযোগ করেন আওয়ামী লীগের লোকজন তার অফিস ভেঙ্গেছে। ঝালকাঠি পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আফজাল হোসেনের প্রধান নির্বাচনী অফিসে আওয়ামী লীগ হামলা করে বলে দাবি করা হয়। এই দাবি নিয়ে আফজাল রিটার্নিং অফিসারের কাছে অভিযোগ করে।
১৫ মার্চ সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুরে এলজিইডির কাজে আওয়ামী লীগের গাড়াদহ ইউনিয়ন সভাপতি সেলিম আক্তার, আশরাফুল ইসলাম, বুলবুল আহমেদ ও আলমের নামে চাঁদাবাজি, সরকারি কাজে বাধাদান ও কর্মচারীদের মারধরের অভিযোগে মামলা করা হয়। এই অনৈতিক অভিযোগের ফলে আওয়ামী লীগ থেকে তাদের বহিষ্কারের দাবি করে দলের একটি অংশ। কুষ্টিয়ার মিরপুরে ছাতিয়ান ইউনিয়নে জাসদের ওপর হামলা করে তাদের সাতজনকে আহত করে আওয়ামী লীগ। পরে অবশ্য জাসদের লোকজনও আওয়ামী লীগের লোকজনের বাড়িতে হামলা করে। ২০ মার্চ বগুড়ার শেরপুরে বঙ্গবন্ধু প্রজন্ম লীগ উপজেলা সভাপতি জাকির হোসেন অপহরণ মামলায় গ্রেফতারের পর তার বাড়ি থেকে ১০টি ককটেল ও ২টি সামুরাই উদ্ধার করে পুলিশ। উল্লেখ্য, গত ১৪ মার্চ ডা. আমিরুল ইসলাম চৌধুরীকে অপহরণের পর দিগম্বর করে ছবি তুলে পাঁচ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে জাকির। ২১ মার্চ পাবনা পৌর এলাকায় পৈলানপুরে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ ও গোলাগুলীতে আহত হয় তেরজন। অটোবাইক স্ট্যান্ড বসানো নিয়ে দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে আহত হয়- নজরুল, জনি, পাপ্পু, আশরাফ, সাচ্চু, শফিকুল, দুলাল, আব্বাস ও সুমনসহ তেরজন। ফেনীর সোনাগাজীর চরসাহাভিকারী গ্রামে পৌর নির্বাচন থেকে ফেরার পথে বাগদানা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন বাবুলকে ১টি বিদেশী পিস্তল, ৪ রাউন্ড গুলী ও ১টি ম্যাগাজিনসহ আটক করে পুলিশ। ২৩ মার্চ পাবনার বেড়ায় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকুর ভাই আব্দুল বাতেনসহ পনের জনের নামে চার্জশিট দাখিল করে আদালতে। ২৫ মার্চ চট্টগ্রামে চান্দনাইশ উপজেলায় স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালন কালে শহীদ মিনারে ফুল দেয়ার আগে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে যুবলীগ নেতা সেলিম ও ইউনুস আহত হয়। ২৭ মার্চ ঢাকায় সরকারের দুই মন্ত্রীকে আদালত অবমাননার দায়ে প্রত্যেককে পঞ্চাশ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেয় যা সাত দিনের মধ্যে জমা দানের নির্দেশ থাকে, অনাদায়ে তাদের সাত দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে। মন্ত্রীরা হলেন- মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এবং খাদ্যমন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলাম, তারা উভয়ই আওয়ামী লীগের নেতা। মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় মীর কাসেম আলীর রায় নিয়ে অশোভন মন্তব্য করায় তাদের এই দণ্ড দেয় দেশের সর্বোচ্চ আদালত। ২৯ মার্চ নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জে থানা আওয়ামী লীগের সমাজকল্যাণ সম্পাদক সালাহউদ্দিনের দুই ছেলে সাইফুল ইসলাম রূপম ও মাহাবুবুর রহমান আরমান, তাদের সহযোগী কবির এবং মনিরকে সাত দশমিক ৬৫ বোরের বিদেশী পিস্তল, ১টি ম্যাগাজিন ও ৩ রাউন্ড গুলীসহ গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ সময় তারা মোটরসাইকেল ও সিএনজি নিয়ে মহড়া দিচ্ছিল।
ছাত্রলীগ : ২ মার্চ বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ-পুলিশ সংঘর্ষে আহত দশজন। মোবাইল চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের সাথে আধা ঘন্টাব্যাপী সংঘষের্র সময় পুলিশকে বেধড়ক পেটাতে থাকে ছাত্রলীগ। এ সময় বাংলা ভিশনের বরিশাল অফিসের ক্যামেরা পার্সন সেলিম রেজা পুলিশের উপর হামলার চিত্র ধারণ করতে গেলে তাকে মারধর করে, ক্যামেরা কেড়ে নেয়, ক্যাসেট ও ব্যাটারি ভেঙ্গে ফেলে ছাত্রলীগ। ময়মনসিংহ জেলার ভালুকার ডাকাতিয়া ইউনিয়নে ছাত্রলীগের সম্মেলনে দাওয়াত পেয়ে সাড়া না দেয়ায় ঢাকার ব্যবসায়ী ইউনুস আলীর ক্রয়কৃত জমিতে থাকা দেড় লাখ টাকার ষোলটি গাছ কেটে নিল ছাত্রলীগ ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক সোহানুর রহমান আলমের নেতৃত্বে ২০-৩০ জন সন্ত্রাসী। ৩ মার্চ ফেনীর সোনাগাজীতে ছাত্রলীগ মঙ্গলকান্দি ইউনিয়ন সভাপতি মীর ইমরানকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে শহরে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে গাছের গুঁড়ি ও গাড়ি নিয়ে সড়ক অবরোধ করেছে বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা। ৭ মার্চ সিলেট এমসি কলেজে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে দু’জন গুলীবিদ্ধসহ আহত দশজন। জেলা ছাত্রলীগ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিরণ মাহমুদ দিপু গ্রুপ এবং সাধারণ সম্পাদক রায়হান চৌধুরী গ্রুপের মধ্যে এই সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষের সময় গোলাগুলির ঘটনা ঘটে, এ সময় রতনগুপ্ত ও খায়রুল ইসলাম শাহীনসহ আহত হয় দশজন। পরে জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক রায়হান চৌধুরীসহ সতের জনের নামে মামলা দায়ের হয়েছে। ৯ মার্চ যশোরের শহরতলীর শেখহাটি কালিতলা এলাকায় পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে সদর উপজেলা ছাত্রলীগ আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আরিফ হোসেন আহত এবং ১টি পিস্তল, ম্যাগাজিন, ৪ রাউন্ড গুলি, ১টি চাকু ও রাম দাসহ তাকে আটক করেছে পুলিশ। ১০ মার্চ খুলনা মেডিকেল কলেজে ছাত্রলীগের সভাপতি ফাহিদ ও সহ-সভাপতি ওবায়েদ গ্রুপের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বহিরাগতদের নিয়ে সংঘর্ষে তৌফিক, আদনান, তাপস সিকদার, আনন্দ কুমার, শওকাতুজ্জামান, আকিউল ইসলাম, শাহীন, তাজ উদ্দিন, সোহাগ, বিভাষ চন্দ্র দাস, ওবায়দুর রহমান, আশরাফুল ইসলাম, সোহল ইসলাম, ফয়সাল (কে-২০), হিমাদ্রী পোদ্দার, অমিয় সরকার, তারেক হাসান, মৃন্ময় পাল, তাজমির শাহরিয়ার, হাসান শাহরিয়ার, ফয়সাল (কে-২১), রূপন, অনির্বান বিশ্বাস, জয়, আমান উল্লাহ্্, ফারুক, ওমর ফারুক ও সাইফুল্লাহ্্ মাহমুদ আহত হয়। ঘটনা তদন্তে প্রফেসর ডাঃ আব্দুল আহাদের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়।
১৪ মার্চ ঢাকার সরকারি তিতুমীর কলেজ ছাত্রাবাসে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে মাহফুজুর রহমান নামে একজন আহত হয়েছে। যশোরের কেশবপুরে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সুলতান ফেরদৌস সবুজ নামে এক শিক্ষককে মারধর করায় ছাত্রলীগ নেতা আকাশ খান, সাইফুল ইসলাম, মনিরুল ইসলাম ও রোকনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ১৫ মার্চ চট্টগ্রামে কামাল গেটে ছাত্রলীগের রয়েল গ্রুপ ও আনিস গ্রুপের দলীয় কোন্দলে গুলিতে ব্যবসায়ী আব্দুল জাহেদ খুন গেছে। ঝুট ব্যবসায়ী জাহেদ ছাত্রলীগ ইসলামিয়া কলেজ সাধারণ সম্পাদক রয়েলের অনুসারী বলে জানা যায়। ১৬ মার্চ ঢাকা সাভারে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি সংবাদ প্রকাশকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগ বিশ্ববিদ্যালয় সাধারণ সম্পাদক রাজিব আহমেদ রাসেলের বিরুদ্ধে থানায় জিডি করেছে দৈনিক মানবকন্ঠ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি সাইফ উদ্দিন আবির ও বাংলানিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকমের প্রতিনিধি নূর আলম হিমেল। রাসেল দুই সাংবাদিককে হুমকি দেয়ায় এই জিডি করা হয়। ১৭ মার্চ রাজশাহী কলেজে মুসলিম ছাত্রাবাসে শিবির আখ্যা দিয়ে তিন ছাত্রকে পিটিয়েছে ছাত্রলীগ। রাজশাহী কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক নাইমুল হাসানের নেতৃত্বে একদল কর্মীর হামলায় আহত মামুনের পরিচয় পাওয়া গেলেও বাকীদের নাম জানা যায়নি। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একজনকে গ্রেফতার করে। ১৮ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের সুর্যসেন হল শাখার শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক মিশকাত হোসেনের হাতে মল চত্বরে দু’ছাত্রী লাঞ্চিত হয়েছে। এ বিষয়ে বিশ্বদ্যিালয়ে কর্মরত সাংবাদিকরা মেশকাতকে প্রশ্ন করলে তাদের সাথেও অসৌজন্য মূলক আচরণ করেন তিনি। ২১ মার্চ নোয়াখালীর মাইজদিতে ছাত্রলীগের হাতে ছাত্রদলের ফজলে রাব্বি রাজু, ছাত্রলীগ কর্মী ওয়াসিম ও রাজু আহত হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ফজলে রাব্বি রাজু ও ওয়াসিম ২২ মার্চ ভোর রাত তিনটায় মারা যায় এবং ছাত্রলীগ কর্মী রাজু ২৩ মার্চ মারা যায়।
২৬ মার্চ ঢাকার তেজগাঁওয়ে টাঙ্গাইল কুমুদিনী উইমেন্স মেডিকেল মেডিকেল ছাত্রীকে প্রকাশ্যে ইভটিজিং করার দায়ে ছাত্রলীগ কর্মী ফারহান মুনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ২৭ মার্চ সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সকল কার্যক্রম পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত স্থগিত করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। ২৮ মার্চ ঢাকার সাভারে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের আয়োজনে স্বাধীনতা দিবসে জাতীয় স্মৃতি সৌধে শ্রদ্ধা জানাতে না যাওয়ায় আঠার ছাত্রকে মারধর ও জুতা পেটা করেছে ছাত্রলীগ।  [চলবে]
মুহাম্মদ ওয়াছিয়ার রহমান 
Reactions:

0 comments:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Ads