মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই, ২০১৫

‘সাত খুন মাফ’


গত সোমবার অনির্বাচিত সরকার বাহাদুর তার মন্ত্রিসভায় এক আজব আইনের খসড়া অনুমোদন করেছে। আমরা সাধারণত লক্ষ্য করে আসছি যে, প্রধানমন্ত্রীর সভানেতৃত্বে অনুষ্ঠিত এসব বৈঠকে যা অনুমোদিত হয়, তা জাতীয় সংসদে একেবারে রা রা করে অনুমোদন হয়ে যায়। এই অনির্বাচিত সংসদের দু’ একজন স্বতন্ত্র সদস্য রয়েছেন, যারা কিছু বলার চেষ্টা করেন। কিন্তু অধিকাংশ সময়ই দেখা যায় যে, সরকার দলের সদস্যদের টেবিল চাপড়ানো আর ফাইলের বাড়িতে সে কণ্ঠস্বর দ্রুতই হারিয়ে যায়। তারপর হ্যাঁ জয়যুক্ত হয়, হ্যাঁ জয়যুক্ত হয়, হ্যাঁ জয়যুক্ত হয়। ফলে ধারণা করা যায়, খুব দ্রুত সংসদে ওঠানো মাত্রই এ খসড়া আইনে পরিণত হয়ে যাবে।
এই আইনের নাম ‘সরকারি কর্মচারী আইন ২০১৫’। এই আইন পাস হলে দেশের নাগরিকদের সাংবিধানিক সমানাধিকার মারাত্মকভাবে লঙ্ঘিত হবে। নাগরিক হিসেবে সরকারি কর্মচারীরা যেসব সুবিধা পাবেন, যে দায়মুক্তি পাবেন, সাধারণ নাগরিকরা তার ছিটেফোঁটাও পাবেন না। প্রস্তাবিত খসড়ায় বলা হয়েছে, ‘ফৌজদারি মামলার অভিযোগপত্র আদালতের অনুমোদনের পূর্বে কোনো সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীকে গ্রেফতার করতে হলে সরকারের পূর্ব অনুমোদন নিতে হবে।’ এই সুবিধার আইন অন্য কোনো পেশার লোকদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না। এমনকি মন্ত্রী-এমপিদেরকেও কোনো ফৌজদারি মামলায় গ্রেফতার করতে হলে কারও অনুমতি নেয়ার প্রয়োজন পড়ে না। কিন্তু সরকারি কর্মচারীদের ক্ষেত্রে সে অনুমোদন লাগবে।
আইন বিশেষজ্ঞরা প্রস্তাবিত এই আইনকে সংবিধানের ৭, ২৬ ও ২৭ অনুচ্ছেদের লঙ্ঘন হিসেবে অভিহিত করেছেন। তারা বলেছেন, আইনটি এমনভাবে করা হয়েছে যাতে মনে হতে পারে, ‘আইন সকলের জন্য সমান নয়।’ আইন সরকারি কর্মচারীদের জন্য এক রকম আর রাজনীতিবিদ ও সাধারণ মানুষের জন্য অন্য রকম কাম্য হতে পারে না। মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত আইনটি রাষ্ট্র বনাম এইচআরপিবি (হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ) মামলার রায়ের চেতনারও পরিপন্থী। ইতঃপূর্বে এ ধরনের একটি বিশেষ সুবিধা আইন হাইকোর্ট বাতিল করে দিয়েছিলেন।
প্রস্তাবিত আইনটি সংবিধানের সমতার নীতির লঙ্ঘন বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন। প্রসঙ্গত সংবিধানের ২৭ অনুচ্ছেদে উল্লেখ রয়েছে যে, ‘সকল নাগরিক আইনের দৃষ্টিতে সমান আশ্রয়লাভের অধিকারী।’ কিন্তু এই আইন সাংবিধানিক বৈষম্য তৈরি করবে। এখানে উল্লেখ করা যায় যে, ফৌজদারি মামলায় সংসদ সদস্যদের গ্রেফতারে আইনী কোনো বাধা নেই। সংসদ সদস্যদের গ্রেফতারের পর স্পিকারকে জানানোর বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এ সংক্রান্ত জাতীয় কার্যপ্রণালী বিধির ১৭২ বিধিতে বলা হয়েছে, ‘কোনো সদস্য ফৌজদারি অভিযোগে বা অপরাধে গ্রেফতার হইলে কিংবা কোনো আদালত কর্তৃক কারাদ-ে দ-িত হইলে বা কোনো নির্বাহী আদেশক্রমে আটক হইলে ক্ষেত্রমত গ্রেফতারি বা দ-দানকারী বা আটককারী কর্তৃপক্ষ  বা জজ বা ম্যাজিস্ট্রেট তৃতীয় তফসিলে প্রদত্ত যথাযথ ফরমে অনুরূপ দ-াজ্ঞা বা আটকের কারণ বর্ণনাপূর্বক অবিলম্বে অনুরূপ ঘটনা স্পিকারকে জানাইবেন।’ তবে সংসদ সদস্যদের সংসদের সীমানার ভেতরে গ্রেফতার  করতে হলে স্পিকারের অনুমতি নিতে হয়। কিন্তু সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এমন কি অতিমানব হলেন যে, কিংবা তাদের এমন অতিমানব হিসেবে তৈরি করার কেন প্রয়োজন হয়ে পড়লো যে, সরকারের অনুমোদন ছাড়া তাদের কোনো অপরাধে গ্রেফতারই করা যাবে না। সম্ভবত খুন করলেও না।
সংবিধানের ২৬ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘এই সংবিধানের বিধানাবলী লঙ্ঘন করে রাষ্ট্র কোনো আইন প্রণয়ন করতে পারবে না।’ ২৬/২ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘রাষ্ট্র এই ভাগের কোনো বিধানের সহিত অসামঞ্জস্য কোন আইন প্রণয়ন করিবেন না এবং অনুরূপ কোন আইন প্রণীত হইলে তাহা এই ভাগের কোন বিধানের সহিত যতখানি অসামঞ্জস্যপূর্ণ, ততখানি বাতিল হইয়া যাইবে।’
এর আগে ২০১৩ সালে সরকারি কর্মচারীদের বিশেষ সুবিধা দিতে আর একটি আইন সংসদে পাস হয়েছিল। দুর্নীতি দমন কমিশনের সংশোধনী আইনের ৩২(ক) ধারা অন্তর্ভুক্ত করে বলা হয়, ‘জজ, ম্যাজিস্ট্রেট বা সরকারি কর্মচারীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৯৭ ধারা আবশ্যিকভাবে পালন করতে হবে।’ ঐ ধারায় বলা হয়েছে, জজ, ম্যাজিস্ট্রেট বা সরকারি কর্মকর্তা কোনো অভিযোগে অভিযুক্ত হলে সরকারের অনুমোদন ছাড়া কোনো আদালত সেই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ আমলে নিতে পারবেন না। কোন্ আদালতে এই মামলার বিচার হবে, তা সরকার নির্ধারণ করে দেবে। এর ফলে কমিশন সরকারের অনুমোদন ছাড়া সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে কোনো মামলা আমলে নিতে পারছিল না।
সংসদে পাস করা এই আইনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে একটি রীট আবেদন দায়ের করা হয়েছিল। রাষ্ট্র বনাম এইচআরপিবি মামলার রায়ে হাইকোর্ট ঐ আইনকে সংবিধান পরিপন্থী বলে ঘোষণা করেছিলেন। ঐ রায়ে বলা হয়, দেখা গেল, কোনো একটি দুর্নীতির ঘটনায় সরকার প্রধান বা মন্ত্রীদের সঙ্গে সরকারি কর্মচারী জড়িত। ঐ অবস্থায় সরকার প্রধান কিংবা মন্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা করা যাবে। কিন্তু সরকারি কর্মচারীর বিরুদ্ধে মামলা করতে গেলে অনুমতি লাগবে। এই পরিস্থিতির সমন্বয় কীভাবে করা হবে, তার কোনো দিক নির্দেশনা সংশোধিত দুদক আইনে নেই। ফলে আইনে এই  পরিস্থিতি সৃষ্টি করা অযৌক্তিক। রায়ে বলা হয়, কার্যত এটা কোনো আইনই নয়। সংশোধিত এ আইন দেশের সাধারণ মানুষ ও দুর্নীতিগ্রস্তদের মধ্যে বিভাজন তৈরি করবে। দুর্নীতিবাজদের রক্ষাকবচ হবে, যা অসাংবিধানিক। এমন আইন দেশের বিপুল জনগোষ্ঠীর সঙ্গে বৈষম্যমূলক ছাড়া আর কিছুই নয়। রায়ে বলা হয়, সংবিধান অনুযায়ী একটি বিশেষ শ্রেণীকে বিশেষ সুবিধা দেওয়ার সুযোগ নেই। রায়ে সংবিধানের ৭(২) অনুচ্ছেদে বলা হয়, সংশোধিত দুদক আইনের ৩২(ক) অবৈধ ও বাতিলযোগ্য।
মন্ত্রিসভায় সরকারি কর্মচারী আইন ২০১৫-এর অনুমোদনে খানিকটা চমকেই উঠেছেন দেশের আইন বিশেষজ্ঞরা। কারণ, সংবিধানের সংশ্লিষ্ট অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘জনগণেরর অভিপ্রায়ের পরম অভিব্যক্তিরূপে এই সংবিধান প্রজাতন্ত্রের সর্বোচ্চ আইন এবং অন্য কোনো আইন যদি এই সংবিধানের সহিত অসামঞ্জস্যপূর্ণ হয়, তাহা হইলে সেই আইনের যতখানি অসামঞ্জস্যপূর্ণ, ততখানি বাতিল হইবে।’ তাছাড়া সংবিধানের ২৬ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী সংশোধিত দুদক আইন অবৈধ ও বাতিলযোগ্য। রায়ে বলা হয়, সংবিধানের ২৭ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী অযৌক্তিক আইন প্রকৃতপক্ষে কোনো আইন হতে পারে না। কারণ আইনের দৃষ্টিতে সব মানুষ সমান অধিকার পাবে। অথচ সরকারি কর্মচারীদের ক্ষেত্রে বিশেষ সুবিধা দেয়া হয়েছে। যা সংবিধানের ২৭ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দেয়া সমতার নীতির লঙ্ঘন। তাদের মতে মন্ত্রিসভায় সোমবার পাসকৃত আইনটি হাইকোর্টের উক্ত রায়ের চেতনার পরিপন্থী।
এ প্রসঙ্গে সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র এডভোকেট ড. শাহদীন মালিক বলেছেন, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় আইনের শাসনের মূল কথাই হলো, আইনের চোখে সবাই সমান। সামন্ত শাসনামলে একসময় দেশের সাধারণ মানুষের জন্য ছিল এক আইন, আর রাজা-বাদশাহর পরিবারের জন্য ছিল আর এক আইন। আইনের শাসন ও ন্যায় বিচারের স্বার্থে ফৌজদারি অপরাধে আইনের চোখে যাতে সকলে সমান হয়, সেজন্যই ফৌজদারি কার্যবিধি করা হয়েছে। কাউকে আটক করা যাবে, আর কাউকে আটক করা যাবে না, এটা আইনের মূলনীতির পরিপন্থী।
এর আগে পুলিশসহ আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর ক্ষেত্রে সরকার বিশেষ সুবিধা দেয়ায় এখন সে বাহিনী নানা অসামাজিক অনৈতিক অপরাধমূলক কাজে জড়িয়ে পড়েছে। সরকার তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থাই নিতে পারছে না। রাষ্ট্র পরিচালনায় সরকার জনগণ নয়, পুলিশ বাহিনীর ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ার ফলেই এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। প্রশাসনকে সমান্তরাল বিচারিক ক্ষমতাও দেয়া হয়েছে তাদের সন্তুষ্ট রাখার জন্য। তাদের জন্য পে- স্কেল ঘোষণাও এই অভিপ্রায়েরই অংশ। তার ফলে পুলিশ ও র‌্যাব, পুলিশ ও প্রশাসন নানা দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়ছে। সরকার তা নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না বা নিয়ন্ত্রণ করতে চাইছে না। জনগণের সন্তুষ্টি বা জনকল্যাণ আর সরকারের লক্ষ্য নেই। এই আইন প্রণয়নের মধ্য দিয়ে আবারও প্রমাণ হলো, সরকার পুলিশ ও প্রশাসনকে তুষ্ট করেই রাষ্ট্র পরিচালনা করতে চাইছে। জনগণ তফাৎ যাও। কিন্তু ইতিহাস সাক্ষী, এপথে শাসন ক্ষমতা খুব একটা দীর্ঘায়িত করা যায় না।
ড. রেজোয়ান সিদ্দিকী
Reactions:

0 comments:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Ads

    এই গ্যাজেটে একটি ত্রুটি ছিল

    লেবেল

    ইমেইল এর মাধ্যমে আপডেট থাকুন